রানু আমার দিকে রানুর অধর বাড়িয়ে দিল, আমিও কাল-বিলম্ব না করে সেদুটো কে আদর করতে শুরু করলাম। আর ধীরে ধীরে হাত দিয়ে রানুর স্তন দুটোকে দলতে লাগলাম। ও নিজেই হাত পিছনে নিয়ে গিয়ে ব্রা-র হুক খুলে দিয়ে বলল, “তোমাকে কথা দিয়েছিলাম না, অসমাপ্ত কাজটা আজ সমাপ্ত কর”। কথা শুনে আমি রানুর স্তনের উপর থেকে ব্রা নামক আবরণ টি সরিয়ে ফেলি। কি বলব ভাই, এমন সুন্দর স্তন সবাই কল্পনায় দেখে আর তা আমার চোখের সামনে আমার দু হাতের মাঝে। সম্পূর্ণ টাইট আর সাইজ সম্ভবত ৩৩/৩৪ হবে(এই বিষ্যে আমার ধারণা সীমিত)। আর বোটা দুটো গাড় বাদামী (যেন চকলেট)। আমি আস্তে করে রানুর বাম স্তনের বোটায় মুখ নামিয়ে আস্তে করে জিহবা নাড়তে লাগলাম এবং একটু করে চুষতে লাগলাম। আর ডান পাশের টা ডান হাত দিয়ে আদর করতে লাগলাম। এভাবে কিছুক্ষণ আদর করার পরে রানু বলল, “শুধুই কমলা খেলে চলবে? নাকি আর কিছু পছন্দ হয় না?” রানুর এই কটুক্তি শুনে আমি আস্তে আস্তে নিচের দিকে নামতে লাগলাম। (রানু তখনো দাঁড়িয়ে আছে আর আমি রানুর সামনে হাঁটু গেড়ে বসা)। আমি রানুর নাভিতে আস্তে করে একটা চুমু দিতেই ও কেঁপে উঠল। আমাকে দাঁড় করিয়ে এক ধাক্কা দিয়ে রানুর বিছানায় ফেলে দিল। (আমি রানুর রুমে গিয়ে যেখানে দাঁড়িয়েছিলাম, তার পাশেই রানুর বিছানা ছিল। আমাকে বিছানায় ফেলে দিয়ে ও আমার শার্ট টেনে খুলে ফেলল। আমার পরনে ছিল একটা জিন্স। জিন্সের ভিতরে তখন আমি যেন একটা নতুন অস্তিত্ব টের পাচ্ছিলাম। রানু আমার প্যান্ট খুলে ফেলে আমার উপর ঝাপিয়ে পড়ল। এবং পাগলের মত আমাকে চুমু খেতে খেতে বলতে লাগল, “এইদিন টির জন্য আমি কবে থেকে যে অপেক্ষা করছি তা তোমাকে কিভাবে যে বলে বুঝাব, আজ তুমি আমায় সব কিছু নিয়ে নাও। আমায় শেষ করে ফেল”। আমি রানুর দিকে তাকিয়ে বললাম যে, “আমিও যে এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম জান, আজ আমার স্বপ্ন পূরণ হওয়ার দিন”। এরপর আর কথা না বাড়িয়ে ওকে শুইয়ে দিয়ে আমি রানুর প্যান্টি টা আস্তে খুলে ফেললাম। ভিতর থেকে বেরিয়ে এল সুন্দর পরিষ্কার গোলাপী একটি যোনী, যা কখনো কোনো ছেলের স্পর্শ পায়নি। আমি আস্তে করে রানুর যোনীতে একটা চুমু খেলাম, ও কেঁপে উঠল। আমি যোনীর আশেপাশে চুমু খেতে লাগলাম আর দুই হাত দিয়ে রানুর কমলালেবু দুইটা কে আদর করতে লাগলাম। আমি এদিকে রানুর যোনীতে আমি জিহবা দিয়ে কারসাজি চালাচ্ছি আর ওদিকে রানু আনন্দে আর উত্তেজনায় মুখ দিয়ে চাপা শব্দ করছে। এভাবে কিছুক্ষণ করার পরে আমি আঙ্গুল দিয়ে রানুর ক্লিটটা নাড়তে লাগলাম। ২মিনিট আঙ্গুলি করার পরে রানু আমাকে বলে উঠল, “এই শয়তান, সব মজা নিজেই নিয়ে নিচ্ছ, আর আমি যে এদিকে কিছু একটা অভাব বোধ করছি তার কি হবে? আমাকে পূর্ণ করে দাও, আমি আর থাকতে পারছি না”। কে কার কথা শোনে, আমি আমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আর ওদিকে রানু আমাকে সমানে বলে যাচ্ছে, আমি আর পারছি না, আমাকে গ্রহণ কর তাড়াতাড়ি। এভাবে মিনিট পাচেক পার হওয়ার পরে রানুর অবস্থা যখন চরম পর্যায়ে, আমি থেমে গেলাম। রানু অবাক হয়ে বলল, “থামলে কেন?”। আমি বললাম, “এবার তোমার পালা”। আমার কথা শুনে রানু একটা মুচকি হাসি দিয়ে আমাকে শুইয়ে দিয়ে আমার আন্ডারওয়্যার টা খুলে নিল। ভিতর থেকে আমার পেনিস টা বেরিয়ে এল। রানু মুচকি হেসে বলল, “এইটা কে জান? একে তো ঠিক চিনতে পারলাম না”। আমি উত্তর দিলাম, “তোমার মুখ টা দিয়ে ওটাকে আদর কর, তাহলে চিনতে পারবে”। রানু ব্লোজব দেওয়া শুরু করল। রানুর ব্লো দেখে তো আমি অবাক, একটা বাঙ্গালী মেয়ে এত সুন্দর ব্লোজব করতে পারে, সেটা কল্পনার বাইরে। আমি চিন্তা করছি আর ওদিকে রানু তার কারসাজি চালিয়ে যাচ্ছে, এদিকে তো আমার অবস্থা তখন প্রায় চরম। রানু মুখের কারসাজিতে আমার পেনিস তখন পূর্ণাঙ্গ রূপ ধারণ করেছে। রানু রানুর মুখ সরিয়ে আমাকে বলল, “এবার কি আমাদের প্রতিক্ষার পালা শেষ হবে?”। আমি রানুর কথার কোনো জবাব না দিয়ে ওকে শুইয়ে দিয়ে রানুর যোনীর মুখে আমার পেনিস টা বসিয়ে আস্তে একটা ধাক্কা দিলাম, দিয়েই বুঝলাম যে রানুর কুমারীত্ব এখনো বর্তমান। এখন যাকে ভালবাসি তাকে তো ধোকা দিতে পারি না। রানু কে প্রশ্ন করলাম, “কি করব?”। রানু বলল, “চিন্তা করো না, তোমার কাজ তুমি কর”। আমি একবার রানুর চোখের দিকে তাকিয়ে বুঝলাম যে রানুও এটাই চাইছে। পরমুহূর্তে রানুর কুমারীত্ব বিসর্জন হয়ে গেল আমার কাছে। রানু আমার দিকে একটা হাসি দিল, “আমার স্বপ্ন পূরণ হল”। আমিও পালটা হাসি দিলাম।আমি আস্তে ধীরে আমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। রানু নিজের হাত দিয়ে রানুর কমলালেবু দুইটা কে আদর করে যাচ্ছে। আর চাপা শীৎকার করছে। বেশি জোরে করলে ভয় আছে, পাশের বাসার লোকজন শুনে ফেলতে পারে। এবার আমি রানুর উপর শুয়ে পরে রানুর অধর দুটো আমার ঠোটের মাঝে নিয়ে নিলাম আর হাত দিয়ে রানুর স্তন দুইটা নিয়ে খেলতে লাগলাম। আর ওদিকে মূল কাজ তো চলছেই, সেটা কি আর থামিয়ে রাখা যায় !!! । এভাবে কতক্ষণ ধরে আমরা যে নিজেদের মাঝে হারিয়ে ছিলাম তা বলতে পারব না। রানুর কথায় আমি বাস্তবে ফিরে আসি, “আমার প্রায় হয়ে আসছে”। আমি বললাম, “আমারও একই অবস্থাম বেশিক্ষণ আর থাকতে পারব না”। আমাদের কথা শেষ হতে না হতেই আমরা দুজনেই নিজেদের চরম মুহূর্ত একসাথে পার করলাম। রানু ও আমি একসাথে। এরপর আমরা এলিয়ে পরলাম। রানু আমাকে বলল, “জান, আমি যে কতরাত স্বপ্ন দেখেছি যে আজকের ঘটনা টা নিয়ে, কবে ঘটবে, কবে তুমি আমার সর্বস্ব নিয়ে নিবে, এর জন্য যে এতদিন অপেক্ষা করতে হবে তা কে জানত”। এরপর আবার রানু আমাকে চুমু খাওয়া শুরু করল। আমি বলে উঠলাম, “এই তোমার দুপুরের খাবার? মন তো ভরেছে, কিন্তু ওদিকে পেটের ভিতরে যে শোচণীয় অবস্থা, তার কি হবে?”। আমার কথা শুনে রানু হেসে উঠে কিছু বলতে যাবে, এমন সময় ওদের বাসার কলিংবেল বেজে উঠল।